Breaking News

Monday, 25 February 2019

জেনে নিন উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার শেষ মুহূর্তের কিছু গুরুতপূর্ণ তথ্য।না জানলে বাতিল হয়ে যেতে পারে রেজিস্ট্রেশন।


আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা৷ আগামীকাল অর্থাৎ ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে  উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু পরীক্ষা  শেষ হবে ১৩ মার্চ বুধবার ৷ সবাই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত ৷ তাই পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার  আগে জেনে নিন, এবারের কিছু  গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশাবলি৷

এবারের  উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার  মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা হল ৮লক্ষ ১৬হাজার ২৩৪জন। পরীক্ষা চলবে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত।মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস ও নানা ধরনের বৃশৃঙ্খলা দেখা যাওয়ার ফলে করা পদক্ষেপ নিয়েছে পর্ষদ।

প্রথমত

পরীক্ষা শুরু হওয়ার ১ ঘণ্টার মধ্যে কোনও পরীক্ষার্থী জল খেতে যাওয়া,শৌচালয়ে যাওয়া বা অন্য কোনো কারণে পরীক্ষা  কেন্দ্রের  বাইরে যেতে পাবে না। এককথায় ১২টা ৪৫ মিনিটের আগে কোনও পরীক্ষার্থী পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বেরোতে পারবে না। এমনকি কোনও শিক্ষক শিক্ষিকা  বা শিক্ষাকর্মী পরীক্ষা শুরু হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে যেতে পারবেন না।

যদি কোনো পরীক্ষার্থী  পরীক্ষাকেন্দ্রে মোবাইল নিয়ে আসে তাহলে তার কী শাস্তি হতে পারে???

যদি কোনো পরীক্ষার্থী  পরীক্ষাকেন্দ্রে মোবাইল নিয়ে আসে, টোকাটুকি করে অথবা  খাতার কোনও অংশ জমা না দিয়ে বাড়ি নিয়ে চলে গেলে, সমস্ত শিক্ষকগণ ও আরএ কমিটির কাছে হাজির হতে হবে তাকে। আরএ কমিটি  তার যথাসাধ্য ব্যবস্থা নেবে।এমনকি শাস্তি স্বরূপ  বাতিল হতে পারে পরীক্ষার্থীর  পরীক্ষা এবং রেজিস্ট্রেশন।

পরীক্ষাকেন্দ্রে করা যাবে না ভাঙচুর।

প্রতি বৎসরই পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর বিশেষ করে পরীক্ষার শেষের দিন অনেক পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষা কেন্দ্রের বেঞ্চ, ফ্যান, বাল্ব ইত্যাদি ভাঙচুর করতে ও নোংরামি করতে দেখা যায় আর এই সব নোংরামি ও দুর্ব্যবহারের ক্ষতিপূরণ ভরতে হয় স্বয়ং পরীক্ষাকেন্দ্রকে।তাই এবারে যদি কোনো পরীক্ষার্থী কে এই সব করতে দেখা যায় তবে সেক্ষেত্রেও বাতিল হতে পারে তার পরীক্ষা ও রেজিস্ট্রেশন।

প্রায়  এক চতুর্থাংশ পরীক্ষাকেন্দ্রে রাখা হবে মোবাইল ডিটেক্টর যন্ত্র । প্রতিটি জেলার পরীক্ষাকেন্দ্রে ভেনু ইনচার্জ হিসাবে পর্যবেক্ষণের দায়িত্বে থাকবেন জেলাশাসক প্রতিনিধির একজন আধিকারিক । পরীক্ষাকেন্দ্রের মূল প্রবেশপথে মোবাইল ডিটেক্টরের মাধ্যমে চেকিংয়ের কাজে ভেনু সুপারভাইজারকে সাহায্য করার জন্য কাউন্সিল মনোনীত প্রতিনিধি থাকবেন। তবে সমস্ত দায়িত্বভার থাকবে প্রধান শিক্ষক এবং ভেনু সুপারভাইজার বা টিআইসি বা সহযোগী শিক্ষকের ওপর। পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রশ্নপত্রের সার্বিক সুরক্ষার জন্য ভেনু সুপারভাইজারের ঘরকে কন্ট্রোল রুম করা  হবে। প্রতিটি হলে তিনজন ইনভিজিলেটর থাকবেন। তার মধ্যে একজন বিশেষ মোবাইল ইনভিজিলেটর থাকবে, যাঁর কাজ হল  পরীক্ষার্থীরা মোবাইল ব্যবহার করছে কি না সেদিকে নজর রাখা। শুধুমাত্র ভেনু সুপারভাইজার, সেন্টার সেক্রেটারি এবং সেন্টার ইনচার্জের কাছে মোবাইল ফোন থাকবে। কোনও শিক্ষক বা শিক্ষাকর্মী-সহ যে কোনও ব্যক্তি যদি মোবাইল নিয়ে ঢোকেন বা ক্ষমতার দুর্ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে  ‘এক্সামিনেশন সিকিউরিটি ফরম্যাট’ পূরণ করে ভেনু সুপারভাইজার অভিযুক্তের নাম সহ সংসদে পাঠাবেন। সংসদ সে বিষয়ে  ব্যবস্থা নেবে৷

একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণি মিলিয়ে মোট ৪২টি বিষয়ে বাংলা, ইংরেজি এবং হিন্দি ভাষায় প্রশ্নপত্র তৈরি করা হয়েছে। উর্দু, সাঁওতালি, নেপালি ভাষাভাষীদের জন্য দোভাষীর ব্যবস্থাও করেছে সংসদ।

No comments:

Post a Comment